পনের বছরের ব্যবধান। ১৯৬৩-তে ‘সাইলেন্স’। ১৯৭৮-তে ‘অটাম সোনাটা’। এখানেও দুই নারী। এবার আর দুই বোন নয়। এবার মা ও মেয়ে। শার্লট আর ইভা। আর আছেন শার্লটের প্রতিবন্ধী কন্যা হেলেনা এবং ইভার স্বামী ভিক্তর। এই ছবিতে নীরবতা নয় সঙ্গীত এক বড় অংশ জুড়ে থাকে। মূল বিষয়টা কিন্তু সেই ‘সাইলেন্স’-এরই যেন সম্প্রসারণ। সেই পাপ পুণ্য এবং ঈশ্বরের কথা। এবং সংপৃক্ত যৌনতা। বার্গম্যান ১০০ বা জন্ম-শতবর্ষ সবে পেরিয়ে এলাম। আর সেই সূত্রে এই গ্রন্থ— আরেকবার বার্গম্যানের কাছে ফিরে যাওয়া। আরেকবার বার্গম্যানের রহস্যজগতে প্রবেশ সন্ধান। হয়তো নিঃসঙ্গতা, মৃত্যু এবং স্বপ্নকে আরেকবার ছুঁয়ে দেখা। বা ধর্মের বাস্তবতাকে যাচিয়ে দেখে নেয়া। এইসব নিয়েই তো তিনি। যার কাছে শেষঅবধি জীবন ও মানবধর্মই শেষ কথা। এইসব ভাবনা এবং কৌতুহল নিয়ে বার্গম্যান জগতে ঢোকার জন্যে অবশ্যই বেছে নেওয়া ‘সাইলেন্স’ এবং ‘অটাম সোনাটা’। বার্গম্যানের ছবির চিত্রনাট্য-পাঠ যে কোনও ধ্রুপদী সাহিত্যের পাঠের শামিল। এক অনন্য অভিজ্ঞতা।  

ইঙ্গমার বার্গম্যান

SKU: 00032
₹200.00Price